আজ, , ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সংবাদ শিরোনাম :





তাহিরপুরে জনমত জরীপে এগিয়ে কাপ-পিরিচ প্রতীকে চেয়ারম্যান প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন

আল হেলাল তাহিরপুর থেকে ফিরে :: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা নির্বাচন ২১ মে ২০২৪ইং রোজ মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হবে। গত ২ মে প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই প্রার্থীরা ছুটে চলেছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। দিচ্ছেন নানান প্রতিশ্রুতি। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন একাধিক প্রার্থী। তার মধ্যে জনপ্রিয়তায় আলোচনা ও জনসমর্থনে এগিয়ে রয়েছেন সাবেক উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের একাধিকবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন খান। তিনি রাজনৈতিক জীবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে শুধু জড়িতই নন বরং আজীবন একদল একনেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর একমাত্র বিশ্বস্থ সৈনিক। জেলজুলুম হুলিয়াকে অম্লান বদনে সহ্য করে গেলেও কখনও নীতির সাথে বেঈমানী করেননি এই রাজনীতিবিদ।
আলোচনা, প্রচারণায় এবং জনপ্রিয়তায় অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন তিনি।

 

এলাকার সাধারণ মানুষ ও নেতাকর্মীরা বলেন, তাঁর চিন্তা ও চেতনা সমাজের নিপীড়িত-নির্যাতিত মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে থাকার। তিনি সর্বদা এলাকার উন্নয়নের চিন্তা করেন এবং সেই উদ্দেশ্যে কাজ করেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি বাদাঘাট ও উত্তর শ্রীপুর এলাকা সহ সারা উপজেলার সাধারণ মানুষের কাছে একজন নিঃস্বার্থ এবং ত্যাগী নেতা হিসাবেই পরিচিতি লাভ করে আসছেন। উপজেলার সাধারন মানুষ বিশ্বাস করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন খান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে সাধারণ মানুষের মাঝে রাষ্ট্রের সকল বরাদ্দের সুষম বণ্টন করবেন এবং এলাকার উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রায় ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হবে। সাধারন মানুষের স্বপ্ন তাহিরপুর উপজেলা একটি বেকারত্ব, দারিদ্র্যমুক্ত, দুর্নীতি ও দুঃশাসন মুক্ত স্মার্ট উপজেলা হিসেবে স্বীকৃতি পাবে তারই হাত ধরে। কারণ তাঁর স্বপ্ন উপজেলাকে স্মার্ট বাংলাদেশের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা।

 

নির্বাচনের মাঠে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এলাকাবাসীর কাছে অত্যন্ত সাদামাটা ও ক্লিন ইমেজের মানুষ হিসেবে দলমত নির্বিশেষে ব্যাপক পরিচিত মুখ আবুল হোসেন খান । অন্যকোন নেতার পরিচয়ে নয় নিজের পরিচয়েই তিনি জনপ্রিয় নেতা হিসেবে সর্বমহলে জনপ্রিয়। তার সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি ৭১ এর রনাঙ্গনে ট্যাকেরঘাট সাবসেক্টরের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। সাবসেক্টর কমান্ডার সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত এমপি,কমরেড নজির হোসেন ও জননেতা হোসেন বখত এর হাত ধরেই তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেছিলেন।

 

বালিজুরী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আজাদ হোসেন বলেন, দিরাই শাল্লাবাসীর মতো আমরাও এবার প্রবীণ ব্যক্তিকেই ভোট দেবো। তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন খানের বিজয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করতে গিয়ে আরো বলেন,তাহিরপুরে কাপ পিরিচের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের ২ বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোঃ নিজাম উদ্দিন বলেন, আমরা উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী সমর্থকরা এবং ৭ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও মেম্বারগন একবাক্যে ঐক্যবদ্ধভাবে বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন খানকে সমর্থন দিয়েছি। অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে কাপ-পিরিচ প্রতীকের সুনিশ্চিত জয় হবে। উত্তর বড়দল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাশুক মিয়া বলেন, যতই কালো টাকা ব্যায় সহকারে পেশীশক্তির ভয় প্রদর্শন করা হচ্ছে ভোটারদের কাছে ততই কাপপিরিচের জনপ্রিয়তা বাড়ছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অমল কান্তি কর বলেন,আমরা দলমতের উর্ধে উঠে একজন প্রবীণ রাজনীতিবিদকে সমর্থন দিয়েছি। যিনি একজন আজন্ম আওয়ামী লীগার এবং বরাবরই ক্লিন ইমেজের অধিকারী। তার সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। এবার যদি আমরা তাকে নির্বাচিত না করি তাহলে পরেরবার হয়তো তাকে পাবোনা। তাই জীবদ্ধশায় আমরা একজন দেশপ্রেমিক মুজিবাদর্শের প্রকৃত সৈনিককে উপযুক্ত সম্মান দিতে চাই। যে যাই বলুন না কেন ? এবারের নির্বাচনে জয় কাপপিরিচেরই হবে।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ