jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ৯ই রজব, ১৪৪৪ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» সুনামগঞ্জে নিউইয়র্ক পুলিশের অফিসার নিয়ন চৌধুরী কে সংবর্ধিত করেছে রিপোর্টার্স ইউনিটি «» ছাতকে পিক-আপ ভ্যানের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ গেলো সায়েমের «» ছাতকে পছন্দের বিদ্যালয়ে পোষ্টিং দিতে নতুন শিক্ষকদের কাছ থেকে টাকা আদায় «» ছাতকের একটি মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের মধ্যে পবিত্র কোরআন, পাঞ্জাবি-বোরকা বিতরণ «» ছাতকে মেহেরুন নেছা একাডেমিতে পিঠা উৎসব ও পুরস্কার বিতরণী সভা «» সৈয়দপুর বাজারে রাদিস শপিং কমপ্লেক্স’র ব্যবসায়ী সমিতির কমিটি গঠন «» বিশ্বনাথে ৭ শতাধিক শীতার্থকে প্রধানমন্ত্রী পক্ষে শীতবস্ত্র দিলেন শফিক চৌধুরী «» ছাত্র মজলিস সিলেট স্কুল বিভাগের শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠিত «» জগন্নাথপুরে প্রেমিকার বিষপানে আত্মহত্যা «» বিনয়ীর জীবন সুন্দর


শ্বশুর বাড়িতে জামাইকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ, বউ-শাশুড়ি আটক

ডেস্ক রিপোর্ট :: বিয়ের ৫ মাসের মাথায় হারুনুর রশিদ নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে শ্বশুর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার ভোর রাতে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার দক্ষিণ চরবংশী গ্রামের শ্বশুরের ঘরের পাশের বাগান থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মরদেহের কপাল ও গলায় জখম ছিল বলে জানায় নিহতের পরিবার। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হারুনের শাশুড়ি খুকি বেগম ও স্ত্রী বৈশাখী বেগমকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। ঘটনার পর থেকে হারুনের শ্বশুর মনছুর আহমেদ ও ভায়রাভাই জুয়েল আত্মগোপনে রয়েছে। নিহত হারুন সদর উপজেলার চররুহিতা ইউনিয়নের নবীগঞ্জ বাজার এলাকার আবদুল মান্নানের ছেলে। তিনি পেশায় কসাই (মাংস ব্যবসায়ী)। হারুনের পরিবারের লোকজন জানায়, প্রায় ৫ মাস আগে পাশ্ববর্তী ইউনিয়নের চরবংশী গ্রামের মনছুর আহমেদের মেয়ে বৈশাখীর সঙ্গে হারুনের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। এর কিছুদিন পরই জানা যায় বৈশাখীর অন্য ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। বৈশাখীও নিয়মিত ওই ছেলের সঙ্গে কথা বলতো। এনিয়ে হারুন ও বৈশাখীর মধ্যে প্রায়ই কথা কাটাকাটি হত। এসব কারণে কয়েকদিন আগে বৈশাখী তাদের বাড়িতে চলে যায়। সোমবার রাতে হারুনকে বৈশাখীর বোনজামাই বিরিয়ানী খাওয়ানোর কথা বলে শ্বশুর বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে হত্যা করে। পরে ঘটনাটি অন্যদিকে প্রভাবিত করতে বাড়ির পাশের বাগানে মরদেহ ঝুলিয়ে রাখে। এদিকে ছেলের শোকে সদর হাসপাতালের সামনে কান্নায় ভেঙে পড়েন মা কহিনুর। হারুনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিচার চেয়েছেন তিনি। হারুনের ভাই রিয়াজ হোসেন ও বোন জোৎস্না বেগম জানায়, তাদের ভাবি বৈশাখীর বিয়ের আগে প্রেম ছিল। বিয়ের পরেও তিনি প্রেমিকের সাথে কথা বলতেন। এনিয়ে প্রায়ই হারুনের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হতো। সোমবার (১৬ জানুয়ারি) রাতে হারুনকে তার ভায়রা ভাই জুয়েল শ্বশুরবাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। রাত ৩ টার দিকে খবর আসে হারুন আত্মহত্যা করেছে। এটি আত্মহত্যা নয়। তাকে পরিকল্পিতভাবে পিটিয়ে হত্যা করে মরদেহ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে দাবি করা হয়। রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিপন বড়ুয়া বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতের কপালে জখম রয়েছে। শশুর বাড়ির লোকজন জানিয়েছে হারুন নিজেই বরই গাছের সঙ্গে আঘাত করে কপালে জখম করে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ