jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ৯ই রজব, ১৪৪৪ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» সুনামগঞ্জে নিউইয়র্ক পুলিশের অফিসার নিয়ন চৌধুরী কে সংবর্ধিত করেছে রিপোর্টার্স ইউনিটি «» ছাতকে পিক-আপ ভ্যানের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ গেলো সায়েমের «» ছাতকে পছন্দের বিদ্যালয়ে পোষ্টিং দিতে নতুন শিক্ষকদের কাছ থেকে টাকা আদায় «» ছাতকের একটি মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের মধ্যে পবিত্র কোরআন, পাঞ্জাবি-বোরকা বিতরণ «» ছাতকে মেহেরুন নেছা একাডেমিতে পিঠা উৎসব ও পুরস্কার বিতরণী সভা «» সৈয়দপুর বাজারে রাদিস শপিং কমপ্লেক্স’র ব্যবসায়ী সমিতির কমিটি গঠন «» বিশ্বনাথে ৭ শতাধিক শীতার্থকে প্রধানমন্ত্রী পক্ষে শীতবস্ত্র দিলেন শফিক চৌধুরী «» ছাত্র মজলিস সিলেট স্কুল বিভাগের শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠিত «» জগন্নাথপুরে প্রেমিকার বিষপানে আত্মহত্যা «» বিনয়ীর জীবন সুন্দর


বিদেশ থেকে স্বদেশে মোবাইল ফোনে বিয়ে

মুফতি ওযায়ের আমীন

 

বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে মোবাইলে বিয়ের প্রয়োজন দেখা দেয়। এদিকে সরাসরি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিয়ে সম্পন্ন হয় না। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বরকনে উভয়ের কাছে সাক্ষী উপস্থিত থাকলেও মোবাইলে ইজাব-কবুল বলার দ্বারা বিয়ে সম্পন্ন হয় না। অথচ বিভিন্ন কারণে মোবাইলে বিয়ে সম্পন্ন করা জরুরী হয়ে পড়ে।

অনেকে মোবাইলের মাধ্যমে একবার বিয়ে সম্পন্ন করে। পরবর্তীতে বর দেশে আসলে আবার আনুষ্ঠানিক বিয়ের আনুষ্ঠানিক আয়োজন করে। যদি পূর্বের বিয়ে সঠিক থাকে তাহলে নতুন করে আনুষ্ঠানিকতা অনর্থক ও নিষ্প্রয়োজন। আর যদি মোবাইলের বিয়ে সঠিক না হয় তাহলে বিদেশ থেকে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মতো সব কথা-বার্তা আমলনামায় গুনাহ হিসেবে লেখা হবে।

এক্ষেত্রে করণীয় কি? এটা অনেকের জিজ্ঞাসা। শরীয়তে আসলে এর বিকল্প ব্যবস্থা আছে।

প্রথম কথা হচ্ছে মোবাইলে ইজাব-কবুল সহীহ হয় না কেন? এর জবাব হচ্ছে ইজাব-কবুলের জন্য মজলিস এক হওয়া জরুরী। মোবাইলের মাধ্যমে দুই দেশে ইজাব-কবুল হলে টেলি কনফারেন্সের মাধ্যমে পরস্পর দেখা গেলেও মজলিস এক না হওয়ার কারণে বিবাহ সহীহ হয় না।

দ্বিতীয় কথা হচ্ছে মোবাইলের মাধ্যমে দূর থেকে যে কেউ অন্য কাউকে যেকোনো কাজের ব্যাপারে ওকিল নিয়োগ দিতে পারে। উকিল নিয়োগ দেওয়ার জন্য মজলিস এক হওয়া জরুরী নয়। সাক্ষীও প্রয়োজন নেই।

মূল কথা: দূর দেশ থেকে বিবাহ সঠিক করার জন্য সহজ নিয়ম হচ্ছে- যেকোনো এক পক্ষ মোবাইলের মাধ্যমে অন্যকে উকিল নিয়োগ করবে। উকিল দুইজন সাক্ষীর সামনে মক্কেলের পক্ষে বিবাহের প্রস্তাব করবে অথবা বিয়ের প্রস্তাব কবুল করবে। এতে বিয়ে সম্পন্ন হয়ে যাবে। তারা দুইজন স্বামী-স্ত্রী হিসেবে সাব্যস্ত হবে। তাদের সাক্ষাতের আগ পর্যন্ত কথাবার্তাসহ স্বামী-স্ত্রী সুলভ সব আচরণ জায়েজ। পরবর্তীতে যখন সাক্ষাৎ হবে আনুষ্ঠানিক কোন বিয়ের প্রয়োজন নেই।

মনে করুন- বর কাউকে উকিল বানিয়ে একথা বলে যে, “আমাকে অমুক মেয়ের সাথে বিবাহ পড়িয়ে দিন” তাহলে উল্লেখিত বর্ণনায় উক্ত ওকীল যদি কনের ওকীলকে বিবাহ করিয়ে দিতে কনেকে প্রস্তাব দিতে বলে তাহলে বিবাহ শুদ্ধ হয়ে যাবে। এর বিপরীতে কনে যদি কাউকে উকিল বানিয়ে দেয় আর কনের উকিল দুজন সাক্ষীর সামনে বরের নিকটে প্রস্তাব বিয়ের প্রস্তাব করে এবং বর প্রস্তাব কবুল করে তাহলে বিয়ে সম্পন্ন হয়ে যাবে। বর-কনে উভয়ের উকিল যদি এক জায়গায় একত্রিত হয় দুইজন সাক্ষীর সামনে নিজেদের মক্কেলের পক্ষে ইজাব-কবুল করে তাহলেও বিয়ে সম্পন্ন হয়ে যাবে।

فى خلاصة الفتاوى- إمراة وكلت رجلا بأن يزوجها من نفسه فقال الوكيل اشهدوا انى قد تزوجت فلانة من نفسى إن لم يعرف الشهود فلانة لا يجوز النكاح مالم يذكر إسمها وإسم ابيها وجدها، وإن عرف الشهود فلانة وعرفوا أنه اراد به تلك المرأة يجوز، (خلاصة الفتاوى-2/15

والله اعلم بالصواب

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ